কারও আধার না থাকলে সরকারের কাছে তাঁর কোনও অস্তিত্বই নেই, প্রশ্ন সুপ্রিম কোর্টের

নয়াদিল্লি: আধার নিয়ে অস্বস্তিকর প্রশ্ন সুপ্রিম কোর্টের। বুধবার সরাসরি আধার সংক্রান্ত মামলা নয়, হাড় কাঁপানো শীতে শহরের ফুটপাথবাসী লোকজনের জন্য রাতের আশ্রয়ের ব্যবস্থা করা সংক্রান্ত মামলার শুনানিতে শীর্ষ আদালত উত্তরপ্রদেশ সরকারের কাছে জানতে চায়, শহরের গৃহহীন মানুষজনের জন্য কীভাবে আধার কার্ড তৈরি হচ্ছে।
যোগী আদিত্যনাথ সরকারের প্রতিনিধিত্ব করা অতিরিক্ত সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতা বলেছিলেন, আধার কার্ড জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই করে রাতের আশ্রয়স্থলে থাকতে দেওয়া যেতে পারে।
তবে তাঁকে শীর্ষ আদালতের বেঞ্চ বলে, কারও নিজের ঘরবাড়ি না থাকলে আধার কার্ডে কী পরিচয় থাকবে তাঁর? কীভাবে একজন গৃহহীন লোকের আধার কার্ড হবে? মেহতা প্রথমে বলেন, এমন লোকের আধার না থাকারই সম্ভাবনা। তখন বেঞ্চ বলে, তাহলে কোনও লোকের আধার কার্ড না থাকলে ভারত সরকার বা উত্তর প্রদেশ সরকারের কাছে কি তাঁর কোনও অস্তিত্বই থাকবে না? এঁদের জন্য কি আশ্রয়ের ব্যবস্থা হবে না?
মেহতা তখন বলেন, কারও আধার কার্ড না থাকলে সরকারের কাছে তাঁর কোনও অস্তিত্বই নেই, এটা বলা ঠিক নয়, কারণ তাঁর ভোটার পরিচয় পত্র থাকতে পারে, যাতে তাঁর ঠিকানা রয়েছে। তখন শীর্ষ আদালত বলে, ভোটার পরিচয়পত্র পেতে গেলেও তো ঠিকানার প্রমাণ লাগে। যাঁর ঘরবাড়িই নেই, ঠিকানার প্রমাণ তিনি কী করে দেবেন?
দেশে কত মানুষের আধার কার্ড আছে, জানতে চায় বেঞ্চ।
সিনিয়র অ্যাডভোকেট প্রশান্ত ভূষণ বলেন, ৯০ কোটি মানুষের এই কার্ড হয়েছে। সরকার বলছে, ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট, মোবাইল সচল রাখতে, নানা সরকারি ভরতুকির সুযোগ পেতে আধার নম্বর লাগবে।
প্রসঙ্গত, আধার তথ্যের সুরক্ষা নিয়ে নানা মহলের আশঙ্কার মধ্যেই ১৭ জানুয়ারি থেকে আধারের বৈধতা নিয়ে পেশ হওয়া আবেদনের ওপর সুপ্রিম কোর্টে চূড়ান্ত শুনানি শুরু হতে চলেছে।

Releated Post