‘নির্ভয়াকাণ্ডের পুনরাবৃত্তি হতেই পারে, ধর্ষণের জন্য দায়ী হবে পোশাক’

রায়পুর: ক্যালেন্ডারের পাতায় এখন চলছে একবিংশ শতাব্দী৷ কিন্তু মানুষের চিন্তাভাবনাতে তা বোঝার জো নেই একেবারেই৷ পোষাকই নাকি ধর্ষকদের উদ্দীপ্ত করে ধর্ষণ করতে৷ এমনই মন্তব্য করে আপাতত আলোচনার শীর্ষে রায়পুরের কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়ের এক শিক্ষকা৷

রায়পুর কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়ের বাইলজির শিক্ষিকা স্নেহলতা শংখাওয়ার৷ কিছুদিন আগেই ক্লাস চলাকালিন তিনি বলেন, যদি কোনও মেয়ে শর্টস পরে কিংবা ছোট কোনও পোশাক পরে রাস্তাঘাটে চলাফেরা করে তাহলে ছেলেরা উদ্দীপিত হবেই৷ এমনকি নির্ভয়া কাণ্ডেরও পুনরাবৃত্তি হওয়া খুব একটা অস্বাভাবিক নয় বলে তারা দাবি করেন তিনি৷

এহেন মন্তব্যের পরই ক্লাসের ছাত্রীরা অভিভাবকসহ গোটা ঘটনাটি জানায় কেন্দ্রীয় বিদ্যালয় স্কুলের প্রিন্সিপালকে৷ লিখিতভাবে শিক্ষিকার মন্তব্যটি প্রিন্সিপাল ভগবান দাসকে জানায় তারা৷ ঘটনাটি জানানোর পাশাপাশি ওই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগও দায়ের করা হয় বলে জানা গিয়েছে৷

পুলিশ সূত্রে খবর, এই প্রথম নয়৷ এর আগেও নানাভাবে মানসিকভাবে নির্যাতন করতেন ওই শিক্ষিকা৷ আর শিক্ষিকার এহেন মন্তব্যের জেরে অস্বস্তিতে পড়েন ক্লাসের অন্যান্য ছাত্রীরা৷ সেই কারণে এদিন আগেভাগেই তৈরি ছিলেন ক্লাসের পড়ুয়ারা৷ কাউন্সিলিং সেশনের গোটাটি তারা অডিও করেন৷ এরপর সেই গোটা বিষয়টি তারা তুলে দেন স্কুলের প্রিন্সিপাল এবং পুলিশের হাতে৷

প্রসঙ্গত, শুধু শর্টসই নয়৷ জিনস এবং লিপস্টিক পড়ারও বিরোধী তিনি৷ শিক্ষিকার কথায়, দিনকে দিন মেয়েরা নাকি নির্লজ্জ হয়ে চলেছে৷ এই ঘটনা প্রসঙ্গে নির্ভয়ার ঘটনাটি টেনে তিনি বলেন, নির্ভয়া কাণ্ডের জন্য নাকি নির্ভয়াই দায়ী৷ অতরাতে একটি ছেলের সঙ্গে কেন সে ঘুরে বেরাচ্ছিল? যে তার স্বামী নয়৷ এই সমস্ত বক্তব্যেই ক্ষুব্ধ হয়ে যান পড়ুয়ারা৷

Releated Post