পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটি কোণে ছড়িয়ে দেওয়া হবে Jio-র নেটওয়ার্ক: মুকেশ আম্বানি

বিশ্ববাংলা শিল্প সম্মেলনের মঞ্চ থেকে পশ্চিমবঙ্গে জিও-র বিস্তারে একগুচ্ছ প্রতিশ্রুতি দিলেন রিলায়েন্স-এর কর্ণধার মুকেশ আম্বানি। জানান, গোটা বাংলায় জিও-র নেটওয়ার্ক ছড়িয়ে দিতে কাজ করছে তাঁর সংস্থা। সম্মেলনের মঞ্চ থেকে আগামী ৩ বছরে জিও ছাড়া রাজ্যে ৫ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি।

সম্মেলনে মুকেশ আম্বানি বলেন, ‘রিলায়েন্সের কাছে জিও আলাদা কোনও ব্যবসা নয়। জিও সবসময় উচ্চ প্রযুক্তি সম্পন্ন পরিষেবা দেওয়ার চেষ্টা করছে। জিও যে শুধু ডেটা বা নেটওয়ার্ক পরিষেবাই দিচ্ছে তাই নয়, জিও-র মাধ্যমে বহু মানুষের কর্মসংস্থানও হয়েছে। ভবিষ্যতে আরও বেশি কর্ম সংস্থানের পরিকল্পনা রয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের লক্ষ লক্ষ মানুষ জিওকে আপন করে নিয়েছে। এর জন্য আমি গর্বিত।‘

জিও এবং ডিজিট্যাল পরিষেবায় রাজ্যের কী কী লাভ হতে পারে?

মুকেশ আম্বানি বলেন, ‘ডিজিট্যাল ব্যবসায় আমার বেশি নজর দেওয়ার মূল কারণ হল, বিশ্বে এখন ডিজিটাল বিপ্লব চলছে। বিশ্বজুড়ে এখন সবকিছুই ডিজিটাল হয়ে যাচ্ছে। গান, সিনেমা, ব্যাঙ্কিং পরিষেবা, গাড়ি-বাড়ির ঋণ, স্বাস্থ্য ব্যবস্থা, শিক্ষা ব্যবস্থা-সহ জীবনের সমস্ত প্রয়োজনীয় কাজই ক্রমশ ডিজিটাল ব্যবস্থার দিকে এগোচ্ছে। প্রত্যেকটি ক্ষেত্রে ব্যবসাও ডিজিটাল হচ্ছে। ডিজিটাল হওয়ার কারণে আগের তুলনায় দ্বিগুণ গতিতে এগোচ্ছে দেশ।

মুকেশ আম্বানির মতে, রাজ্যকে আরও ডিজিটাল করা দরকার। আর এটাই লক্ষ্য জিও-র। বাংলার প্রত্যেকটা মানুষকে ডিজিটাল হয়ে উঠতে সাহায্য করবে জিও। তাদের আরও স্মার্ট করবে। বাংলার দূর-দূরান্তের গ্রামে গ্রামে ডিজিটাল পরিষেবাকে পৌঁছে দেবে জিও। শিক্ষা এবং স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে জিও আরও ডিজিটাল হয়ে উঠতে সাহায্য করবে। দেশে ২ হাজার বিশ্ববিদ্যালয় এবং অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জিও পরিষেবা দেবে। এছাড়া, কলকাতা এবং জেলা মিলিয়ে হাজারেরও বেশি হাসপাতালে জিও-র পরিষেবা পাওয়া যাবে।‘

 

Releated Post